করোনায় প্রাণে বাঁচলেও শ্রবণ শক্তি হারাচ্ছেন অনেকে!

করোনায় প্রাণে বাঁচলেও শ্রবণ শক্তি হারাচ্ছেন অনেকে
করোনায় প্রাণে বাঁচলেও শ্রবণ শক্তি হারাচ্ছেন অনেকে

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস থেকে প্রাণে বাঁচলেও স্বাভাবিক জীবনে ফিরতে পারছেন না অনেকেই। অঙ্গহানির ঘটনা ঘটছে বিভিন্ন দেশে। এবার প্রকাশ্যে এসেছে চাঞ্চল্যকর তথ্য। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর এক ব্যক্তির চিরতরে বধির হওয়ার প্রমাণ পেয়েছেন ব্রিটেনের চিকিৎসকরা।

বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে এ খবর প্রকাশিত হয়। এটিকে করোনায় বধির হওয়ার বা অঙ্গহানির প্রথম নজির হিসেবে দাবি করেছে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম দ্য সান, নিউইয়র্ক পোস্ট, দ্য টাইমস, সিডিটি, স্কাই নিউজ ও লাইভ সায়েন্সের।

৪৫ বছর বয়সী ওই ব্রিটিশ কানে শোনার ক্ষমতা হারানোর পর ম্যানচেস্টার ইউনিভার্সিটির বিশেষজ্ঞরা সতর্ক করে বলেছেন, কিছু ব্যক্তির ক্ষেত্রে এমনটি হতে পারে।
এনআইএইচআর-এর অর্থায়নে পরিচালিত একটি গবেষণায় এর আগে ১২১ জন করোনা রোগীর তথ্য-উপাত্ত পর্যবেক্ষণ করেন বিশেষজ্ঞরা।

হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাওয়ার ৮ সপ্তাহ পর ফোনের মাধ্যমে তাদের সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়। কানে কম শুনতে পাচ্ছেন কি না, এমন প্রশ্নের জাবে ১৩.২ শতাংশ মানুষ জানান আগের থেকে অবস্থা খারাপ। এর মধ্যে আবার আটজনের কানে ভোঁ-ভোঁ শব্দ হয়েছে। বাইরের কোনও আওয়াজ ছাড়াই তাদের এমন অনুভূতি হয়।

এখন যে ব্যক্তি এক কানে শ্রবণক্ষমতা পুরোপুরি হারিয়েছেন তার অ্যাজমা ছিল। উপসর্গের ১০ দিন পর তাকে আইসিইউতে নেন ডাক্তাররা। এরপর ৩০ দিন থাকতে হয় ভেন্টিলেশনে। সেখান থেকে ছাড়া পাওয়ার সপ্তাহখানেক পর বাঁ কানের শ্রবণশক্তি হারিয়ে ফেলেন তিনি। অ্যাজমা থাকলেও লোকটি সুস্থ-সবল ছিলেন বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড পত্রিকা দ্য সান।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY