প্রধানমন্ত্রীকে কটূক্তি, পুলিশের তদন্ত বিএনপি নেতার বিরুদ্ধে

বরিশালের বানারীপাড়ায় করোনা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে আপত্তিকর মন্তব্য করার পাশাপাশি কটূক্তি করার ঘটনায় আদালতের নির্দেশে বিএনপি নেতা জাকির হোসেনের বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

আদালতের নির্দেশে মঙ্গলবার দুপুরে থানা পুলিশের পরিদর্শক (তদন্ত) মো. জাফর আহম্মদ উপজেলার সৈয়দকাঠি ইউনিয়নের আউয়ারবাজার জামে মসজিদ এলাকায় গিয়ে এ তদন্ত শুরু করেন।

অপরদিকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে কটূক্তি করার ঘটনায় বিএনপি নেতা জাকির হোসেনের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের হওয়ার পর থেকে এলাকা ছেড়ে অন্যত্র গাঢাকা দিয়েছেন তিনি।

এ ব্যাপারে উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য এইচ এম হাফিজুর রহমান মামুন জানান, ৪ সেপ্টেম্বর তিনি উপজেলার সৈয়দকাঠি ইউনিয়নের আউয়ারবাজার জামে মসজিদে এশার নামাজ আদায় করতে যান।

এ সময় তিনি ওই মসজিদের ইমাম হাফেজ মো. মাঈন উদ্দিনকে এশার নামাজের পূর্বে দেশের চলমান করোনাভাইরাস সম্পর্কে মুসল্লিদের গণসচেতনতামূলক বয়ান করার অনুরোধ জানান।

তার কথামতো ওই মসজিদের ইমাম হাফেজ মো. মাঈন উদ্দিন করোনাভাইরাস সম্পর্কে মসজিদে উপস্থিত মুসল্লিদের উদ্দেশে বয়ান শুরু করেন। এ সময় স্থানীয় বিএনপি নেতা মো. জাকির হোসেন তার ওই বয়ানের বিপক্ষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে আপত্তিকর মন্তব্য ও কটূক্তি করেন। জাাকির হোসেন এসময় বলেন ‘করোনা হাসিনার সৃষ্টি, টিভিতে হাসিনার মুখ দেখলে সেই দিনটি তার ভালো যায় না’।

এ সময় হাফিজুর রহমান মামুন তার এ কটূক্তির প্রতিবাদ জানান। পরে এ নিয়ে স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরে এ ঘটনা ধামাচাপা দিতে ৫ সেপ্টেম্বর বাদ আসর স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আ. মন্নান মৃধাসহ
কতিপয় আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নেতা জাকির হোসেনকে নিয়ে সালিস বৈঠকে বসেন। সেখানে তারা প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে কটূক্তি করা বিএনপি নেতা জাকির হোসেনকে নিজের দোষ স্বীকার করে নেওয়ার জন্য মৌখিক সিদ্ধান্ত দেন।

এ সময় বিএনপি নেতা জাকির হোসেন সেখানে উপস্থিত থাকা অর্ধ শতাধিক মুসল্লির সামনে নিজের দোষ স্বীকার করে নেন এবং তিনি ভবিষ্যতে আর এ ধরনের কোনো ভুল করবেন না বলে সবার কাছে ক্ষমা চান। এতে সন্তুষ্ট হতে না পেরে ১০ সেপ্টেম্বর তার বিরুদ্ধে উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা মো. হাফিজুর রহমান মামুন বাদী হয়ে থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

বানারীপাড়া থানার ওসি মো. হেলাল উদ্দিন তার ওই অভিযোগটি সাধারণ ডায়েরিভুক্ত করে পরিদর্শক (তদন্ত) মো. জাফর আহম্মদকে আদালতের নির্দেশ নিয়ে তদন্ত করার নির্দেশ দেন। ১২ সেপ্টেম্বর মো. জাফর আহম্মদ ওই অভিযোগটি তদন্ত করার অনুমতি চেয়ে বরিশাল সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট বানারীপাড়া আমলি আদালতে লিখিত আবেদন করেন।

গত ১৩ সেপ্টেম্বর আদালতের বিচারক মো. সাব্বির তার ওই আবেদন আমলে নিয়ে সরেজমিন তদন্তপূর্বক প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার নির্দেশ দেন। সে অনুযায়ী তিনি ১৫ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিন তদন্ত করেন।

এ বিষয়ে প্রাথমিক তদন্তে অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে বলে ওসি (তদন্ত) মো. জাফর আহম্মদ জানান। এছাড়া বিএনপি নেতা জাকির হোসেন ওই ঘটনায় থানায় অভিযোগ হওয়ার পর থেকেই এলাকা ছেড়ে অন্যত্র গাঢাকা দিয়েছেন বলেও তিনি জানান।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY