তোপের মুখে বলিভিয়ার চ্যানেল, করোনা রোগীর মৃত্যু সরাসরি সম্প্রচার করায়

তোপের মুখে বলিভিয়ার চ্যানেল, করোনা রোগীর মৃত্যু সরাসরি সম্প্রচার করায়
তোপের মুখে বলিভিয়ার চ্যানেল, করোনা রোগীর মৃত্যু সরাসরি সম্প্রচার করায়

কোভিড-১৯ রোগীকে বাঁচাতে আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছেন চিকিৎসক, কিন্তু পারলেন না। বলিভিয়ায় করোনায় আক্রান্ত এক ব্যক্তির জীবনের শেষ কয়েকটি মিনিট সরাসরি সম্প্রচার করেছে একটি টিভি চ্যানেল। এ ধরনের বিতর্কিত কান্ড করে সমালোচনার মুখে পড়েছে তারা। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি এক প্রতিবেদনে এই খবর দিয়েছে।

দ্য ‘নো লাইস’ নামের এক অনুষ্ঠানে করোনা রোগীর মৃত্যুর ক্ষণটি সরাসরি সম্প্রচার করেছে পিএটি চ্যানেল। তারা বলছে, দেশের স্বাস্থ্য সেবা নিয়ে কর্তৃপক্ষের উদাসীন মনোভাবে বড় একটা ধাক্কা দিতেই এ কাজটি করেছে তারা।

চ্যানেলটির অবস্থান বলিভিয়ার পূর্বাঞ্চলের শহর সান্তা ক্রুজে, দেশের মোট ২১ হাজার আক্রান্তের ৬০ শতাংশই এই শহরের। মারা যাওয়া ৬৭৯ জনের অর্ধেক এই এলাকার। শহরের বাজে পরিস্থিতি নিয়ে সরকারের টনক নড়াতে পিএটি অনুষ্ঠানটি রাতে সম্প্রচার করে। দেখা যায়, ৩০ মিনিটেরও বেশি সময় ধরে একজন রোগীর জীবন বাঁচাতে আপ্রাণ লড়াই করছেন ডাক্তাররা। কিন্তু তাদের ব্যর্থ করে দিয়ে মারা যান রোগী।

টিভি চ্যানেলটির ‘সংবেদনশীলতা’ নিয়ে প্রশ্ন তুলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন দেশটির ওম্বুডসউইমেন নাদিয়া ক্রুজ, ‘দেশের আইনি আদেশের সঙ্গে সংঘাতপূর্ণ কাজ করেছে চ্যানেলটি। সবার মনে ভয় ঢুকিয়ে দিতে পারে তাদের এই কর্মকান্ড।’ প্রখ্যাত সাংবাদিকসহ অনেকেই ক্ষুব্ধ, যার বহিঃপ্রকাশ হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতে।

সংবাদপত্র এল দেবের দে সান্তা ক্রুজের সাংবাদিক মারিয়া ট্রিগো টুইটারে লিখেছেন, ‘পরিবার আর মৃতের প্রতি শ্রদ্ধার কতটা অভাব। এই ভাইরাসের সঙ্গে আমরা অনেক কিছু হারিয়ে ফেলেছি, এমনকি সমবেদনাও।’ কোচাবাম্বা দৈনিক লস তিয়েমপোসের সাংবাদিক ফাবিওলা চাম্বি বলেছেন, মৃত্যুর মুহূর্তটি সরাসরি সম্প্রচার করার ঘটনা ‘শ্রদ্ধা ও মানবিকতার অভাবকে’ তুলে ধরেছে। এই বিষয় নিয়ে সরকার এখনও কোনও মন্তব্য করেনি।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY