উদ্ভাবন হলো কৃত্রিম রক্ত কণিকা !

উদ্ভাবন হলো কৃত্রিম রক্ত কণিকা !
উদ্ভাবন হলো কৃত্রিম রক্ত কণিকা !

বিজ্ঞানীরা নতুন এক ধরনের সিনথেটিক লাল রক্ত কণিকা উদ্ভাবন করেছেন, যা সত্যিকারের রক্তের মতোই কাজ করবে, এমনকি কিছু ক্ষেত্রে বেশি উপযোগী হয়ে উঠতে পারবে।

নতুন এই রক্ত কণিকা ইঁদুর ও মুরগির ভ্রুণে পরীক্ষা করা হয়েছে। তাতে দেখা গেছে, এই রক্তকণিকা মানবদেহের লাল রক্ত কণিকার মতোই অক্সিজেন বহন করতে পারে।

বিজ্ঞানীরা আরো উল্লেখ করেছেন যে, তাদের উদ্ভাবিত সিনথেটিক লাল রক্ত কণিকা ওষুধ বয়ে নেয়া, টক্সিন শনাক্ত করা ও ম্যাগনেটিক টার্গেটিংয়ের মতো কাজও করতে পারে। এতে করে নতুন এই রক্ত কণিকা ক্যানসারের মতো চিকিৎসায় নতুন সুযোগ তৈরি সহ চিকিৎসা শাস্ত্রে বড় ভূমিকা রাখতে পারবে।

কৃত্রিম এই রক্ত কণিকা উদ্ভাবনে বিজ্ঞানীরা মানুষের দান করা রক্ত কণিকার উপরে প্রথমে সিলিকার পাতলা আবরণ, পরে পজিটিভ ও নেগেটিভ চার্জ সহ পলিমারের আবরণ যুক্ত করেছেন। এরপর সতর্কতার সঙ্গে সিলিকার আবরণ সরিয়ে তা প্রাকৃতিক লাল রক্ত কণিকার মেমব্রেনে যুক্ত করা হয়। আমেরিকান কেমিক্যাল সোসাইটির জার্নাল ‘ন্যানো’তে এই গবেষণার বিষয়টি ছাপা হয়।

কৃত্রিম লাল রক্ত কণিকায় অক্সিজেন বহন করার জন্য হিমোগ্লোবিন, টক্সিন শনাক্ত করতে এটিপি বায়ো সেন্সর, একটি ক্যানসার প্রতিরোধক ওষুধ ও ম্যাগনেটিক ন্যানো পার্টিকেল যুক্ত করা হয়। ফল হিসেবে দেখা যায়, কৃত্রিম রক্ত কণিকা সবগুলো কাজই করতে পেরেছে। ইঁদুরের শরীরে এই কৃত্রিম রক্ত কণিকা ৪৮ ঘণ্টা সঞ্চালন হয়েছে। তবে এই সময়টায় কৃত্রিম রক্ত কণিকার উপরিভাগে প্রোটিনের আবরণ দেয়া ছিল, নইলে কৃত্রিম কণিকাগুলোকে সাদা রক্ত কণিকা ধবংস করে ফেলতো।

নতুন এই লাল রক্ত কণিকা নিয়ে আমেরিকার নিউ মেক্সিকো ইউনিভার্সিটি, সানডিয়া ন্যাশনাল ল্যাবরেটরিজ ও সাউথ চায়না ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজিতে গবেষণা চালানো হয়। এই গবেষণাটিকে বিজ্ঞানীরা বড় ধরনের সাফল্য হিসেবে বিবেচনা করছেন। কারণ মানবদেহের লাল রক্ত কণিকার বিকল্প তৈরি করার একই গবেষণায় অতীতে ব্যর্থ হয়েছিলেন বিজ্ঞানীরা।

NO COMMENTS

LEAVE A REPLY